Thanks for Visiting Our Website
+8801720557112 or +8801720557128 bsb@bsbbd.com Page Visitor: Web Counter

বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের ২৬তম বর্ষে পদার্পন

image description
বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক স্টুডেন্ট কনসাল্টিং প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেশব্যাপী ইতোমধ্যে ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে। 

মঙ্গলবার (০৩ সেপ্টেম্বর) বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক ২৬তম বর্ষে পদার্পন করেছে। নানা কর্মসূচি এবং অত্যন্ত আনন্দঘন ও আলো ঝলমলে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিএসবি’র ২৬তম জন্মদিন অনুষ্ঠিত হয়।
 
১৯৯৩ সালে বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের যাত্রা শুরু হয়। তারপর গত ২৫ বছর বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক অর্জন করেছে অভাবনীয় সাফল্য। ২৬ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিএসবি’র শিক্ষার্থীদের জন্য মাসব্যাপী নানা সুযোগ-সুবিধা ঘোষণা করেছে। সেপ্টেম্বর মাসজুড়ে বিদেশে অধ্যয়নে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে সার্ভিস চার্জ সম্পূর্ণ ফ্রি। যারা আজকে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছে তাদের সবার জন্য ছিল আকর্ষণীয় নানা গিফট।  বিদেশে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের ক্ষেত্রে বিশেষ স্কলারশিপ প্রাপ্তিতে সহযোগিতা প্রদান। 

দিবসটি উপলক্ষে অত্যন্ত আকর্ষণীয়ভাবে সাজানো হয়েছে বিএসবি অফিসকে। আগত সবাইকে ফুল দিয়ে বরণ ও মিষ্টিমুখ করানো হয়। গুলশানস্থ বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের অফিসে আয়োজিত ২৬ তম জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা ও কেক কাটা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের ঈঊঙ এবং বিশিষ্ট শিক্ষা সংস্কার লায়ন এম কে বাশার পিএমজেএফ। 

এ ছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কের নিবাহী পরিচালক অ্যাডভোকেট খন্দকার সেলিমা রওশন।

লায়ন এম কে বাশার  ফিরে দেখা ২৬ বছরের স্মৃতির ঝুড়ি উন্মোচন করে প্রাপ্তি ও অপূর্ণতা তুলে ধরেন বলেন- আমরা অনেক কিছু পেয়েছি এবং শিক্ষার উন্নয়নে অনেক কিছু করেছি। বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক দেশের প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষার্থীকে বিদেশের বিভিন্ন ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার সুযোগ করে দিয়েছে।   

তিনি আরো বলেন- বিএসবি এই সুদীর্ঘ পথ চলায় যুক্ত হয়েছে নানা স্বীকৃতি, প্রাপ্তি, অসাধারণ সব খ্যাতি এবং সাফল্যময় অর্জন। 

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি ঘটলে দেশ অর্থনৈতিকভাবে কিভাবে লাভবান হবে তার নানা চিত্র তুলে ধরে জনাব এম কে বাশার বলেন, আমাদের দেশে বিশ্ব শিক্ষা ব্যবস্থার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কোয়ালিটি শিক্ষাকে যদি নিশ্চিত করা যায়, তবে প্রতিবছর ২৫ থেকে ৩০ হাজার শিক্ষার্থী যারা বিদেশে শিক্ষার জন্য যাচ্ছে, তাদের অনেকেই এদেশেই লেখাপড়া করতে পারবে। তাতে বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হবে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, ইংল্যান্ড, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়ার জিডিপি’র একটি বড় অংশ আসে শিক্ষাখাত হতে। তিনি আগামীতে শিক্ষায় নতুন স্বপ্ন ধারণ করে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।